সঙ্গীর প্রতারণা ধাক্কা সামলাবেন কি ভাবে ? handle the cheating of the partner?

সঙ্গীর প্রতারণা ধাক্কা সামলাবেন কি ভাবে ? handle the cheating of the partner?

 সঙ্গীর প্রতারণা ধাক্কা সামলাবেন কি ভাবে ? How to handle the cheating of the partner?




সঙ্গীর প্রতারণা ধাক্কা সামলাবেন কি ভাবে



 সঙ্গীর প্রতারণা ধাক্কা সামলাবেন কি ভাবে:-  সম্পর্কের  মধ্যে জামেলা হবে এটাই স্বাভাবিক ,কিন্তু সেটা কি ভাবে ঠিক করতে হইবে এটা কিন্তু জানা অনেক জরুরু। তাই পোস্টে কিছু টিপস দেওয়া হলো যদি ভালোলাগে তাহলে এপলাই করে দেখতে পারেন ,এবং উপকার পেল পোস্টি শেয়ার করতে পারেন ,এই পোস্টি সাজানো হয়েছে ,সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার উপায়,সুসম্পর্ক বজায় রাখার উপায়,ভালবাসার মানুষকে ধরে রাখার উপায়,সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার উপায় নিয়ে 



একটি সম্পর্ক তখনি মজবুত হয় যখন একরের ওপরের বিশ্বাস থাকে। কিন্তু সেই বিশ্বাস আর কজনই বা রাখতে পারে। এমন অনেক দম্পতি জীবনে এই বিশ্বাস স্থীয় হয় না ,কারণ ঘরে জীবনসঙ্গী থাকা সত্ত্বেও অনেকে আবার তাদের মনে অন্য একজনকে জায়গা দেয়। যা জীবনসঙ্গী সঙ্গে প্রতারণা করা হয়। কিন্তু এই প্রতারণা সামলাবেন কি ভাবে আসেন তাহলে সেটা জেনে নেওয়া যাক -



১- কখনোই ভেঙে পড়বেন না - দীর্গদিনের সম্পর্ক তবুও যদি সঙ্গী আপনার সঙ্গে এমন প্রতারণা করে তাহলে সেই সম্পর্ক থেকে আগেই বসিয়ে আসবেন না। এমনকি ভেঙে পড়বেন না। ভাববেন আপনার জীবনে এখনো অনেক কিছু বাকি আছে ,এমন কি নিজেকে গোরবন্দি করে ফেলবেন না। কারণ এতে আপনার দ্বিপদ হতে পারে। 

২-প্রতিযোগিতায় যাবেন না আপনার সঙ্গী আপনাকে ঢোকা দিয়ে অন্য কারো সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়েছেন বলে এই নয় যে আপনিও সেটাই করবেন। প্রতিযোগিতার ফলে আপনার রাগ জীবিত থাকবে এবং আপনি জীবনে অগ্রসর হতে পারবেন না। আপনি কষ্টদায়ক এক গোলকধাঁধায় আটকে যাবেন এবং মানসিকভাবে ভেঙে পড়বেন। ব্যক্তিগত রেশারেশি আপনাকে প্রতিশোধপ্রবণ করে তুলবে। দিনশেষে আপনি কোনো ইতিবাচক ফল পাবেন না।

৩-তৃতীয় ব্যক্তিকে জড়াবেন না আপনাদের স্পম্পর্কের মধ্যে কি চলছে না চলছে, বা আপনি আপনার সঙ্গীর সঙ্গে থাকবেন কি থাকবেন না এই সব কথা অন্য ব্যক্তির সঙ্গে আলোচনা না করে ভালো। কারণ, জীবনটা আপনার। আপনি যেটা ভালো বুঝবেন সেটাই করবেন।

৪-স্বাভাবিক হওয়ার জন্য তাড়াহুড়ো করবেন না একটি সম্পর্কে বিচ্ছেদের পর আবার স্বাভাবিক হয়ে ওঠা বেশ কঠিন। সে কারণে বেশি দুশ্চিন্তা না করে ধৈর্য রাখুন এবং নিজেকে সময় দিন। সময় সব সমস্যার সমাধান দিয়ে দেবে। নিজেকে চাপ দেবেন না, কেননা এ ব্যাপারে কোনো বাধাধরা সময় নির্ধারণ করা সম্ভব নয়। বেশি চিন্তাভাবনা না করে মনকে শান্ত করুন এবং সঠিক সময়ের অপেক্ষা করুন।


Comments